আইনি জটিলতা শেষে ইবিতে ভর্তির সুযোগ পাচ্ছেন ১০০ শিক্ষার্থী

আইনি জটিলতা শেষে ইবিতে ভর্তির সুযোগ পাচ্ছেন ১০০ শিক্ষার্থী

আইনি জটিলতা শেষে ইবিতে ভর্তির সুযোগ পাচ্ছেন ১০০ শিক্ষার্থীইবি (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি-
দীর্ঘ আইনি জটিলতা শেষে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) ফলিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদভুক্ত ‘এফ’ ইউনিটের ২০১৬-২০১৭ শিক্ষবর্ষের ভর্তি বাতিলকৃত ১০০ শিক্ষার্থী পুনরায় ভর্তি হওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। গত বছরের ২২ নভেম্বর প্রশ্নফাঁসের অভিযোগে বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট এই পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছিল। এই সিদ্ধান্তের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ৮৮ জন শিক্ষার্থী হাইকোর্ট বিভাগে রিট করেন। আইনি নানা প্রক্রিয়া শেষে আপিল বিভাগ গত বছরের ২২ নভেম্বর ভর্তি পরীক্ষা বাতিলে বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেটের সিদ্ধান্ত অবৈধ বলে হাইকোর্টও রায় বহাল রাখে। রবিবার বিশ্ববিদ্যালয় ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার দপ্তর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার  এস এম আব্দুল লতিফ বলেন, ‘হাইকোর্ট বিভাগে দায়েরকৃত রিট পিটিশন নং ৩৩১৯/২০১৭ এবং আপিল বিভাগে দায়েরকৃত সিভিল আপিল নং ৪২৪/২০১৭ এর আদেশ মোতাবেক ভর্তি বাতিলকৃত ওইসব শিক্ষার্থীরা নতুন করে ভর্তির সুযোগ পাচ্ছে। ‘এফ’ ইউনিটভুক্ত পরিসংখ্যান ও গণিত বিভাগে ভর্তিকৃত ও পরবর্তীতে ভর্তি বাতিলকৃত শিক্ষার্থীদের মধ্যে ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে দ্বিতীয়বার অনুষ্ঠিত ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে যে সকল শিক্ষার্থীরা ভর্তি হওয়ার সুযোগ পেয়ে ভর্তি হয়েছে তারা ব্যতিত উক্ত শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদেরকে সংশ্লিষ্ট বিভাগে অনুমতি দেয়া হয়েছে। উক্ত শিক্ষার্থীরা আগামী ১৫ জানুয়ারি হতে ২১ জানুয়ারির মধ্যে অফিস চলাকালীন সময়ের মধ্যে স্ব স্ব বিভাগ থেকে নির্ধারিত ভর্তি আবেদন ফরম সংগ্রহ করে ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে পারবে।’ ইত্তেফাক/এএম।

(function() {
var referer=””;try{if(referer=document.referrer,”undefined”==typeof referer)throw”undefined”}catch(exception){referer=document.location.href,(“”==referer||”undefined”==typeof referer)&&(referer=document.URL)}referer=referer.substr(0,700);
var rcel = document.createElement(“script”);
rcel.id = ‘rc_’ + Math.floor(Math.random() * 1000);
rcel.type = ‘text/javascript’;
rcel.src = “http://trends.revcontent.com/serve.js.php?w=75227&t=”+rcel.id+”&c=”+(new Date()).getTime()+”&width=”+(window.outerWidth || document.documentElement.clientWidth)+”&referer=”+referer;
rcel.async = true;
var rcds = document.getElementById(“rcjsload_83982d”); rcds.appendChild(rcel);
})();

© ittefaq.com.bd



Source: Ittefacq News