‘টি-টোয়েন্টিই হবে ক্রিকেটের একমাত্র ফরম্যাট’

‘টি-টোয়েন্টিই হবে ক্রিকেটের একমাত্র ফরম্যাট’

‘টি-টোয়েন্টিই হবে ক্রিকেটের একমাত্র ফরম্যাট’স্পোর্টস রিপোর্টার
  সেদিন বেশি দূরে নয়, যেদিন টি-টোয়েন্টিই হয়ে যেতে পারে ক্রিকেটের একমাত্র ফরম্যাট। এমন শঙ্কা প্রকাশ করলেন ইংল্যান্ডের উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান জস বাটলার। ছোট এই ফরম্যাট অন্য ফরম্যাটগুলোকে দ্রুতই ধ্বংস করবে বলে মনে করছেন তিনি।   বাটলারের দাবি, টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট জনপ্রিয় হলেও এটা ক্রিকেটের জন্য আশঙ্কাজনক, এতে ক্রিকেটের উন্নতি হওয়ার সুযোগ নেই। তিনি মনে করেন, ক্রিকেটের এই সংক্ষিপ্ত ফরম্যাট ওয়ানডে ও টেস্টের ভবিষ্যৎ একটা ঘোর অনিশ্চয়তায় ফেলে দিচ্ছে। তাই বাটলারের ভয়-ক্রিকেট একদিন শুধুই টি-টোয়েন্টির হয়ে যায়। টি-টোয়েন্টির আধিপত্যের কারণে এরই মধ্য আবেদন হারাচ্ছে ওয়ানডে ও টেস্ট ক্রিকেট। জস বাটলার এই সংকটকে দেখছেন আরো গভীরভাবে। তার মতে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট অন্য দুই ফরম্যাটকে দিন দিন ‘হত্যা’ করছে। বাটলারের আশঙ্কা, আগামী ১৫-২০ বছরের মধ্যে ক্রিকেটের ফরম্যাট থাকবে একটাই, আর সেটা হল টি-টোয়েন্টি।       অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ডকে নিয়ে চলমান ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজের মাঝপথে স্কাই স্পোর্টসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বাটলার বলেছেন, ‘আমার মনে হয় অদূর ভবিষ্যতে শুধু একটাই ফরম্যাট থাকবে। খুব বেশি দিন বাকি নেই, আগামী ১৫ থেকে ২০ বছরের মধ্যেই এটা হয়ে যেতে পারে।’ ইংলিশ এই ক্রিকেটার মনে করেন, যা কিছুই হোক না কেন সবকিছুর ওপরে রাখা উচিত টেস্ট ক্রিকেটকে। তিনি বলেন, ‘এখনো আমার কাছে টেস্ট ক্রিকেটের অবস্থান চূড়ায়। টি-টোয়েন্টি ম্যাচে স্টেডিয়াম পূর্ণ হয়ে যায়। এটা দেখাও সহজ। আজকাল সবাই সবকিছু দ্রুত সময়ের মধ্যে চায়। এসব বিবর্তনই বলে দিচ্ছে ক্রিকেটে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাট কতটা একচেটিয়া হয়ে উঠছে।’   ইত্তেফাক/মোস্তাফিজ

(function() {
var referer=””;try{if(referer=document.referrer,”undefined”==typeof referer)throw”undefined”}catch(exception){referer=document.location.href,(“”==referer||”undefined”==typeof referer)&&(referer=document.URL)}referer=referer.substr(0,700);
var rcel = document.createElement(“script”);
rcel.id = ‘rc_’ + Math.floor(Math.random() * 1000);
rcel.type = ‘text/javascript’;
rcel.src = “http://trends.revcontent.com/serve.js.php?w=75227&t=”+rcel.id+”&c=”+(new Date()).getTime()+”&width=”+(window.outerWidth || document.documentElement.clientWidth)+”&referer=”+referer;
rcel.async = true;
var rcds = document.getElementById(“rcjsload_83982d”); rcds.appendChild(rcel);
})();

© ittefaq.com.bd



Source: Ittefacq News